১৩ হাজার ৪৯৯ টাকায় মটোরোলা জি৮ পাওয়ার লাইট

১১ নভেম্বর ২০২০ আইসিটি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বার পঠিত হয়েছে

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক : বাংলাদেশের বাজারে নতুন ফোন ছাড়ার ঘোষণা দিল মটোরোলা। মডেল মটোরোলা জি৮ পাওয়ার। ফোনটি ১১ নভেম্বর রাত ৯টা থেকে দারাজে প্রি-পেমেন্ট শুরু হবে। প্রি-পেমেন্ট ডিসকাউন্ট মূল্যে ১৩ হাজার ৪৯৯ টাকায় ফোনটি কেনা যাবে। যারা প্রি-পেমেন্ট করবেন না তাদের ১৪ হাজার ৯৯৯ টাকা পরিশোধ করতে হবে

ফোনটির বিশেষত্ব হচ্ছে এতে ৫০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের শক্তিশালী ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে। ফুল চার্জে টানা দুইদিন ব্যবহার করা যাবে ডিভাইসটি। ফোনটিতে থাকছে ১৬ মেগাপিক্সেল ট্রিপল ক্যামেরা সিস্টেম, ৪ জিবি র‌্যাম+৬৪ জিবি স্টোরেজ এবং ৬.৫ ইঞ্চির ম্যাক্স ভিশন এইচডি+ ডিসপ্লে।

দামের বিবেচনায় মটোরোলার জি পরিবারের পণ্যে সবসময় প্রিমিয়াম ফিচার সরবরাহ করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় মটোরোলার অন্যতম সফল ফ্র্যাঞ্চাইজি ‘জি’ সিরিজের স্মার্টফোন ‘মটো জি৮ পাওয়ার লাইট’ বাজারে ছাড়ছে।

ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম দারাজের ফ্ল্যাগশিপ ১১.১১ সেল উপলক্ষে ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম দারাজে ফোনটি পাওয়া যাবে ১৩ হাজার ৪৯৯ টাকায়। শুধু দারাজে প্রি-পেইড ডিসকাউন্ট অফারের আওতায় ১৩ হাজার ৪৯৯ টাকায় ফোনটি কিনতে পারবেন ক্রেতারা।

মটোরোলা মোবিলিটির সার্কভুক্ত দেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রশান্ত মানি বলেন, ‘বাংলাদেশের বাজারে মটোরোলার জনপ্রিয় ফ্র্যাঞ্চাইজি জি সিরিজ উন্মোচন করতে পেরে আমরা খুবই আনন্দিত। এ পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী এই ফ্র্যাঞ্চাইজির ১০০ মিলিয়ন ডিভাইস বিক্রি হয়েছে এবং সবার ক্রয় সক্ষমতার মধ্যে প্রিমিয়াম ফিচার আনতে আমরা বদ্ধপরিকর।’

দারাজ বাংলাদেশ লিমিটেডের চিফ কমার্শিয়াল অফিসার ফুয়াদ আরেফীন বলেন, ‘বাংলাদেশে সেলেক্সট্রা লিমিটেডের মাধ্যমে মটোরোলা ব্র্যান্ডের নতুন সূচনার অংশ হিসেবে দেশের সবচেয়ে বড় ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম হিসেবে দারাজ খুবই আনন্দিত। বিশেষ অংশীদার হিসেবে, আমরা দারাজের মাধ্যমে বাংলাদেশে মটোরোলার উত্তোরোত্তর সাফল্য কামনা করি।’

ফোনটি একটি সত্যিকারের পাওয়ারহাউজ যা, ব্যাটারি, ক্যামেরা, পারফরমেন্স, ডিসপ্লে এবং অন্যান্য বিবেচনায় সেরা। ফিচারগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত নিচে দেওয়া হলো-

৫০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারি

মটো জি৮ পাওয়ার লাইট মডেলের স্মার্টফোনে ৫০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে, যা একবার সম্পূর্ণ চার্জে একাধিক দিন চলবে। একবার সম্পূর্ণ চার্জে টানা ১০০ ঘণ্টা গান শোনা বা টানা ১৯ ঘণ্টা অনুষ্ঠান ও মুভি দেখা যাবে।

ট্রিপল ক্যামেরা সিস্টেম

ফোনটিতে ট্রিপল ক্যামেরা সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে, যার মধ্যে ১৬ মেগাপিক্সেলের প্রধান ক্যামেরা, ২ মেগাপিক্সেলের ম্যাক্রো এবং ২ মেগাপিক্সেলের ডেপথ ক্যামেরা। এসব ক্যাম ব্যবহার করে আরও স্পষ্ট ছবি, অবিশ্বাস্য ক্লোজ-আপ শট এবং পোট্রেইট ছবি তোলা সম্ভব হবে। মূল ক্যামেরায় এইচআরডি ফেস বিউটি, ডুয়েল ক্যামেরা বুকে, টাইমার, প্যানোরমা এবং আর অনেক ফিচার ব্যবহার করা হয়েছে।

ফোনের মূল ১৬ মেগাপিক্সেল ক্যামেরায় ফেস ডিটেকশন অটোফোকাস ফিচার ব্যবহার করা হয়েছে। ফলে মুহূর্তের মধ্যে নির্দিষ্ট অবজেক্টের ছবি তুলতে সক্ষম, এজন্য জীবনের গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্ত আর হারাবে না।

ফোনটির ডেডিকেটেড ম্যাক্রো ভিশন ক্যামেরায় ফোকাস সাবজেক্টের ৪এক্স ক্লোজার ছবি তুলতে সাহায্য করবে, যা ২.৫ সেন্টিমিটার দূরত্বে থেকেও সাবজেক্টের ওপর ফোকাস করা যায়। এই ক্যামেরার সাহায্যে প্রকৃতি, ম্যাকানিক্যাল ফটো বা অন্য যেকোনও সাবজেক্টের ক্লোজ-আপ ছবি নেওয়া যায়, যা অন্য ক্যামেরার ছবি সম্পর্কে আরও বিস্তারিত পার্থক্য বোঝা যায়।

ফোনের ২ মেগাপিক্সেলের ডেপথ সেন্সর ব্যবহার করে ক্রিয়েটিভ পোট্রেইট ছবি তোলা সম্ভব। ২ মেগাপিক্সেলের ডেপথ এবং ১৬ মেগাপিক্সেলের মূল ক্যামেরা একসঙ্গে কাজ করে, ফলে সামনের বা পেছনের ব্যাকগ্রাউন্ড ব্লার করে ছবিতে বুকে ইফেক্ট ফুটিয়ে তোলে।

আল্ট্রা ওয়াইড ম্যাক্স ভিশন ডিসপ্লে

ফোনটিতে ৬.৫ ইঞ্চির ম্যাক্স ভিশন এইচডি+ ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে, যা বেশ বড়। তবে এক হাতে কাজের সুবিধার জন্য স্ক্রিন ছোটও করে নেওয়া যাবে। ট্রাডিশনাল ডিসপ্লের পরিবর্তে ম্যাক্সভিশন ডিসপ্লেতে ছবি, মুভি, অনুষ্ঠান, গেম এবং অন্যান্য কাজে ক্রেতারা ২০:৯ অনুপাতে রেশিও পাবে।

আল্ট্রা রেসপন্সিভ পারফরমেন্স

ফোনটিতে ৪জিবি র‌্যামসহ অক্টাকোর প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। ফলে ক্রেতারা প্রতিটা টাচ, ট্যাপ উপভোগ করতে পারবেন।

স্টোরেজ

ফোনটিতে ৬৪ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ ব্যবহার করা হয়েছে, যেখানে বিপুল সংখ্যক, অ্যাপ ছবি, গান এবং ভিডিও সংরক্ষণ করে রাখা যাবে। এছাড়া ডেডিকেটের মাইক্রোএসডি কার্ড স্লট রাখা হয়েছে, যা ২৬৫ জিবি পর্যন্ত বাড়িয়ে নেওয়া যাবে।

অ্যাডওয়্যার ও ব্লোটওয়্যার ফ্রি স্টক অ্যানড্রয়েড ওএস

ফোনটিতে অ্যাডওয়্যার ও ব্লোটওয়্যার ফ্রি স্টক অ্যানড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে। ফোনটিতে মটো অ্যাকশন ব্যবহার করা হয়েছ। ফলে ব্যবহারকারীদের খুবই সামান্য ইশারায়ও প্রতিদিনকার ভাবের আদানপ্রদান সহজতর হবে। ক্যামেরা ও ফ্ল্যাশলাইন অন করতে দুইবার হাতের কব্জি টুইস্ট করলেই হবে।

কোনও মুহূর্তই আর মিস হবে না। কারণ হাত ঝাঁকি দিলেই ক্যামেরা চালু হয়ে যাবে। অন্ধকার পথকে আলোকিত করতে আপনার কাছে থাকা ফোনের স্ক্রিনে দুইবার স্পর্শ করুন।

আঙুলের ছাপে নিরাপত্তা

ফোনটিতে আঙুলের ছাপের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। ফলে বারবার পাসওয়ার্ড দেওয়ার প্রয়োজন হবে না। আনলক করতে ফোনের পেছনে থাকা ফিঙ্গারপ্রিন্ট রিডার স্পর্শ করুন, সাথেসাথেই ফোনটি খুলে যাবে। পেছনে লোগের মাঝেই ফিঙ্গারপ্রিন্ট রিডার রাখা হয়েছে, যাতে সহজে বুঝা না যায়।

ওয়াটার রিপ্লেন্ট ও কমপ্যাক্ট ডিজাইন

ফোনটিতে ওয়াটার রিপ্লেন্ট ব্যবহার করা হয়েছে। ফলে খারাপ আবহাওয়া বা বৃষ্টির মধ্যে কল করা বা রিসিভ করা নিরাপদ। এছাড়া কমপ্যাক্ট ডিজাইনের কারণে একহাতে ফোনটি ধরতে আরামদায়ক মনে হবে এবং স্ক্রিনে সবকিছু স্পষ্ট দেখা যাবে।

 

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।