কাউয়াদীঘী হাওরের লামা মিটিপুর মৌজায় সরকারী রাস্থা কেটে ফেলে ধানি চারা করার অভিযোগ

২৪ নভেম্বর ২০২০ মৌলভীবাজার, শীর্ষ সংবাদ, সংবাদ শিরোনাম, সারাদেশ বার পঠিত হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার : রাজনগরের কাউয়াদীঘী হাওরের লামা মিটিপুর মৌজায় সরকারী রাস্থা কেটে ফেলে ধানি চারা করার অভিযোগ উঠেছে। জানাগেছে হাওরের লামা মিটিপুর মৌজার ৫০ ফুটের সরকারী রাস্থা কেটে ছালিক মিয়া নামের জৈনক ব্যক্তি মঙ্গলবার ২৪ নভেম্বর বোরো ধানের চারা তৈরীর জন্য ৫৫৯ দাগের ৫০ ফুটের সরকারী রাস্থার প্রায় ৪ফুট পরিমান কেটে ফেলছেন। এই রাস্থার পার্শ্ববর্তী জমি ৩৮৪ দাগ ১ নং খতিয়ানের খাস জমি। উক্ত ১নং খতিয়ান থেকে সরকার ভূমিহীনদেরে জমি দিয়েছেন। আবার অনেক ভূমিহীন সরকারের নিকট থেকে প্রাপ্ত জমি অবৈধ ভাবে পার্শ্ববর্তী জমির মালিকদেরে বিক্রি করে দেন। আর জমির মালিকরা উক্ত জমি কারো কাছে ইজারা দেন। আবার কোন কোন সময় বর্গা চাষের জন্য দিয়ে দেন। এমনকি ১নং খতিয়ানের পার্শ্বে খাদ গুলো পর্যন্ত তাদের দখলে নিয়ে মাছ ধরার জন্য মৎস্যজীবিদের নিকট ইজারা দেওয়ার অভিযোগ আছে। পূর্বে ১নং খতিয়ানের সরকারি খাস জমি থেকে উচ্ছেদের জন্য রাজনগর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা সরজমিনে গিয়ে ছালিক মিয়া,মমসাদ মিয়া-বানারাই,মস্তফা মিয়া,জিলু মিয়া,পাপলু মিয়া- চকিরাঐ,জলপু মিয়া,করামত মিয়া-তাহারলামু,এলাইস মিয়া,সমছু মিয়া,রব্বান উল­াহ-বালিসহস্র তাদের কে সরকারি খাস জমির অবৈধ দখল ছাড়ার জন্য নির্দেশ দেন। পরর্বতিতে রাজনগর উপজেলার সহকরী ভুমি কমিশনার সরজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং সরকারি খাস জমিতে লাল কাপড়ের ঝান্ডা টাঙ্গিয়ে যান। মঙ্গলবার ২৪ নভেম্বর সরকারি কর্মকর্তাদের নিষেধ অমান্য করে লামা মিটিপুর মৌজার ৫৫৯ নং দাগের ৫০ ফুট প্রস্থ রাস্থাটি পাশের ৪ফুট কেটে ধানি ছাড়া তৈরি করে ছালিক মিয়া নামক জৈনক ব্যক্তি। জানা যায়, এই দাগের পার্শ্ববর্তী ১ নং খতিয়ানের ৩৮৪ দাগ বালিসহস্য গ্রামের রুহুল আমিন নামে এক ব্যক্তি দখল করে রেখেছেন। জমসেদ মিয়া নামক এক ভূমিহীন কে ৩৮৪ দাগ থেকে কিছু জমি সরকারী ভাবে দেওয়া হয়। জমসেদ মিয়া অবৈধ ভাবে ঐ জায়গা রুহুল আমিনরে নিকট বিক্রি করে দেন। এই ভাবে লামা মিটিপুর মৌজার সরকারি রাস্থা কেটে ছোট করে ফেলা হচ্ছে । এবং ১ নং খাস খতিয়ানের জমি চলে যাচ্ছে প্রভাবশালীদের দখলে। এ ব্যপারে অবৈধ দখলদার কে উচ্ছেদ করার দাবি এলাকা বাসীর ।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।