৩০০ বছর ধরে শিয়া-সুন্নীর সম্প্রীতির বন্ধন পৃথিমপাশা নবাব বাড়ির মসজিদ

২৭ আগস্ট ২০১৯ মৌলভীবাজার, শীর্ষ সংবাদ, সংবাদ শিরোনাম, সারাদেশ, সাহিত্য ও সংস্কৃতি, সিলেট বার পঠিত হয়েছে

সৈয়দ আশফাক তানভীর :: প্রায় তিনশত বছরের প্রাচীনতম কালের সাক্ষী ঐতিহাসিক পৃথিমপাশা নবাব বাড়ি মসজিদ। দীর্ঘ বছর থেকে শিয়া-সুন্নীর উভয়ই মাহজাবের অনুসারীরা একত্রে নামাজ আদায় করেন এই মসজিদে। কুলাউড়ার পৃথিমপাশা নবাব বাড়ির মসজিদটি সম্প্রীতির এক নিদর্শন।

পূর্ব-সিলেটের তৎকালীন জমিদার নবাব আলী আমজদ খানের বাড়ি কুলাউড়া উপজেলার পৃথিমপাশায়। মৌলভীবাজার জেলা শহর থেকে ৪৭ কিলোমিটার পূর্বে অবস্থিত প্রায় তিনশত বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী নবাব বাড়ির মসজিদটি কালের সাক্ষী হয়ে আছে এই অ লে।

সরেজমিন পৃথিমপাশা নবাব বাড়ি এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, প দশ শতাব্দীতে সূদুর পারস্যে থেকে ইসলাম প্রচারের জন্য পৃথিমপাশায় আসেন ইসমাইল খান ওরফে খান জাহান আলী। ধর্মীয় কাজে ব্যবহার করার জন্য নবাব বাড়ির সম্মুখে শান বাধানো বিশাল দিঘীর পশ্চিম পাড়ে মুঘল ও পারস্যের স্থাপত্যের আদলে নির্মিত হয় এই মসজিদটি। মূলত নবাব পরিবার শিয়া মাহজাবের অনুসারী হওয়ায় এই মসজিদে শিয়া মতাদর্শে নামাজ আদায় ছাড়াও নবাব পরিবারের পক্ষ থেকে এলাকার সংখ্যাগরিষ্ঠ সুন্নী মাহজাবের মানুষের নামাজ আদায়ের জন্য ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এখানে শিয়া-সুন্নী উভয়ই মাহজাবের দুজন ইমাম নিয়োজিত রয়েছেন। বিশেষ করে দৈনন্দিন নামাজের সময় এবং শুক্রবারে জুম্মার নামাজ প্রথমে শিয়া ইমাম দ্বারা শিয়া অনুসারীরা নামাজ আদায় করেন এবং পরে সুন্নী মাহজাবের অনুসারীরা সুন্নী ইমামতিতে নামাজ আদায় করে আসছেন দীর্ঘদিন থেকে। তিন গম্বুজ বেষ্টিত এই মসজিদটিতে রয়েছে নানা কারুকার্য ও শৈল্পিক নিদর্শনের ছোঁয়া। নবাব বাড়ির পক্ষ থেকে উভয়ই ইমামকে সম্মানী প্রদান করা হয়।
স্থানীয় শিয়া যুবক ইমাদ উদ্দিন বলেন, ঐতিহ্যবাহি নবাব বাড়ির মসজিদটিতে শিয়া-সুন্নী অনুসারীরা একত্রে জুম্মার দিনে নামাজ ও যাবতীয় ধর্মীয় কাজে অংশ নিচ্ছি। আমাদের মধ্যে সম্প্রীতির বন্ধন তৈরি হয়েছে এই মসজিদের মাধ্যমে।

স্থানীয় পৃথিমপাশা গ্রামের সুন্নী যুবক মাহবুব আহমদ পাবেল জানান, নবাব বাড়ির এই মসজিদে আমি নিয়মিত নামাজ পড়ি। আমরা একসাথে পূর্ব-পুরুষ থেকেই এখানে নামাজ আদায় করে আসছি।

স্থানীয় কানিকিয়ারী গ্রামের বাসিন্দা সুন্নী মাহজাবের ইমাম মোঃ হেলিম উল্লাহ, দীর্ঘদিন থেকে এই মসজিদে শিয়া-সুন্নীর নামাজ পড়া হয় যা অন্য কোথাও হয় কিনা আমার জানা নেই। আমার পিতা এই মসজিদে ইমামতি করাতেন। তাঁর মৃত্যুর পর ৩৫ বছর থেকে সুন্নী জামাতের নামাজ পড়াই।

শিয়া মাহজাবের ইমাম মাওলানা নূরে আলম বলেন, এই মসজিদে শিয়া মতাদর্শের মানুষদের জামাতে ইমামতি করাই। আমাদের মধ্যে কোন ভেদাভেদ নেই।

নবাব বাড়ি মসজিদের মোতাওয়াল্লী সাবেক সংসদ সদস্য নবাব আলী আব্বাছ খান বলেন, নবাব পরিবারটি শিয়া মুসলমান হলেও এই অ লে কয়েকশত বছর থেকে সুন্নী-শিয়া একত্রে একে অপরকে ধর্মীয়সহ বিভিন্ন সামাজিক কাজে শ্রদ্ধা ও মিলেমিশে বসবাস করেন। নবাব বাড়ির মসজিদে বংশানুক্রমভাবে শিয়া-সুন্নী উভয়ের জন্য নামাজ আদায়ের ব্যবস্থা রয়েছে দীর্ঘদিন থেকে। যারকারণে সম্প্রীতির বন্ধনে পরিণত হয়েছে এই মসজিদটি।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।