শ্রেণিকক্ষে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে অপহরণের চেষ্টা; শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জন

৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ অপরাধ, নারী ও শিশু, শিক্ষা-ক্যাম্পাস, শীর্ষ সংবাদ, সংবাদ শিরোনাম, সারাদেশ বার পঠিত হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্ট : নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় স্কুলের শ্রেণিকক্ষে প্রবেশ করে এক স্কুল ছাত্রীকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে অপহরণের চেষ্টা চালিয়েছে দুই বখাটে।  কিন্তু অন্যান্য শিক্ষার্থীদের ডাক চিৎকার ও প্রতিবাদে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে বখাটেরা। এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচার না হলে শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন। বুধবার দুপুরে ফতুল্লার আলীরটেক ইউনিয়নের কুড়েরপাড় আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। আজ বৃহস্পতিবার এ ঘটনার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করে স্কুলে মানববন্ধন করেছে।

স্কুল সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে ওই স্কুলের নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছে আলীরটেকের দক্ষিণ ক্রুকেরচর এলাকার সালাউদ্দিনের ছেলে আল হাসান (১৮)। সে তার বন্ধু নিয়ে ওই ছাত্রীর আসা-যাওয়ার পথে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। এতে স্কুলছাত্রী কোনো কর্ণপাত না করলে নানা ধরনের হুমকি প্রদান করে। বুধবার দুপুর পৌনে ২টার দিকে দুই বন্ধুকে নিয়ে আল হাসান স্কুলে প্রবেশ করে স্কুলের কক্ষে থাকা ওই ছাত্রীকে ফের প্রেমের প্রস্তাব দেয়। সে রাজি না হওয়ার তার শরীরে স্পর্শ করে, হাত ধরে টেনে হেঁচড়ে স্কুলের দ্বিতীয় তলা থেকে নিচে নামিয়ে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চালায়। ওই সময় স্কুলের শিক্ষার্থীরা দেখে চিৎকার দিলে বখাটেরা পালিয়ে যায়।

ওই ছাত্রী কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, স্কুলের নিরাপত্তার অভাবে বহিরাগত বখাটেরা আমার শরীরে হাত দিয়ে, টানাহেঁচড়া করে তুলে নিয়ে যাওয়ার সাহস পেয়েছে। আর স্কুলের এক ছাত্রের সহযোগিতায় বখাটে আল হাসান এ ধরনের কাজ করার দুঃসাহস পেয়েছে।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্কুলের এক শিক্ষার্থী জানান, দুই বখাটে প্রভাবশালীদের প্রশ্রয়ে নানা অপকর্ম করে বেড়ায় । এ জন্য স্কুল কমিটি বা শিক্ষকরা তাকে কিছু বলতে সাহস পায় না।

এদিকে স্কুলের শিক্ষার্থীরা বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ক্লাস বর্জন করে বখাটেদের বিচারের দাবিতে প্রতিবাদ জানিয়ে মানববন্ধন করেছে।

এ বিষয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেন জানান, ঘটনার সময় আমি স্কুলে ছিলাম না। তবে সংবাদ পেয়ে দ্রুত স্কুলে এসে জানতে পারলাম ঘটনা। স্থানীয় বখাটে আল হাসান তার বন্ধুদের নিয়ে ওই ছাত্রীকে তুলে নেয়ার চেষ্টা করেছে। স্কুলের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা বখাটেদের ধাওয়া করলে তারা পালিয়ে যায়। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করা হবে।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন জানান, বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। সে কোন নেতার ভাই বা ছেলে হলেও ছাড় পাবে না।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।