রাজনগর পাঁচগাও ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদককে কোপিয়ে হত্যার চেষ্টা

১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ মৌলভীবাজার, সিলেট বার পঠিত হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার: রাজনগর উপজেলার পাঁচগাও ইউনিয়নে পূর্বশত্র“তার জের ধরে ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদুর রহমান মাসাইকে কুপিয়ে মারাত্নক ভাবে আহত করেছে একদল সন্ত্রাসী গ্রুপ। সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) সাড়ে সাতটা আজাদের বাজারের নিকট থেকে জোর পূর্বক অপহরন করে নিয়ে রাজনগর-বালাগঞ্জ রাস্তার পাঁচগাঁও দূর্গা মান্ডপের পার্শ্বে নির্জন স্থানে হত্যার উদ্দেশ্যে তাকে নির্মম ভাবে কোপানো হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সে বর্তমানে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়চ্ছে।

অভিযোগে জানাগেছে, আসুক মিয়া, জুনেদ হোসেন কুটি ওরফে হাতকাটা কুটি,হুশিয়ার মিয়া,মন্নান মিয়া, দুরুদ মিয়া, বদরুল ইসলাম, ফয়েজ মিয়া, নূর হোসেন সাদ্দাই, ফয়ছল মিয়া, লজু মিয়াসহ অজ্ঞাত আরো কয়েক জন মিলে পুর্বশত্রুতার জের ধরে আজাদের বাজারের রাস্তার নিকট থেকে মাসুদুর রহমান মাসাইকে জোর পূর্বক ভাবে সিএনজিতে তুলে নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে রাম দা, চায়নিজ কুড়াল,চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হাত ও পায়ের রগ কেটে দেয়। এ সময় সন্ত্রসীরা তার মাথায় রামদা ও কুড়াল দিয়ে আঘাত করে মারাত্নক ভাবে জখম করেছে। এমনকি গুরুত্বর আহত মাসুদুর রহমানের এক হাত ও পা দেহ থেকে বিছিন্ন করার চেষ্টা করে। মৃত্যু নিশ্চিত করতে ডেগার দিয়ে পেটে আঘাত করে। তাকে মৃত ভেবে চলে যাওয়ার সময় সন্ত্রাসীরা ফোনে মাসুদুর রহমানের ফুফাত্ব ভাই ছকিল মিয়াকে তার লাশ আনার জন্য বলে। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন ও বিকাশ থেকে উওোলন করা পনের হাজার টাকা নিয়ে যায় বলে অভিযোগ রয়েছে। পরে মুমুর্ষ অবস্থায় রাজনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় আকে সিলেট এম,এ,জি ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বর্তমানে তার অবস্থা আশংকাজনক। রাজনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল হাসিম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, দলীয় আভ্যন্তরীন কোন্দলের জের ধরে ঘটনাটি ঘটেছে। কোপানোর ধরন হাত পায়ের রগ কেটে দেয়া থেকে ধারনা করা যায় হত্যার উদ্দেশ্যে তাকে আঘাত করা হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ আসামী ধরার জন্য ৪টি টিম জোর তৎপরতা চালাচ্ছে।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।