মে দিবসে পর্যটন নগড়ী মৌলভীবাজারে রেস্টুরেন্ট বন্ধ,বিপাকে পর্যটক ও ব্যবসায়ী

১ মে ২০১৯ এম কন্ঠ স্পেশাল, কৃষি, অর্থ ও বানিজ্য, পরিবেশ ও পর্যটন, বিশেষ প্রতিবেদন, মৌলভীবাজার, সিলেট বার পঠিত হয়েছে

সাকের আহমদ: মহান মে দিবসে বন্ধ মৌলভীবাজার জেলার সকল ছোট-বড় সকল হোটেল ও রেস্টুরেন্ট। মৌলভীবাজারের পানসী,মামারবাড়ি,টাকুর বাড়ী,শুশুরবাড়ি,দাদার বাড়ি,সাগরিকা,কায়রান, ওয়েষ্টান,কলাপতা,মধুবন, সেলিম হোটেলসহ অসংখ্য খাবারের দোকান খুলেনি মে দিবসের জন্য। এতে পর্যটন নগড়ী মৌলভীবাজারে বেড়াতে এসে বিপাকে পরেছেন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা পর্যটকরা। আজ বুধবার (১ মে) সকাল থেকে রেস্টুরেন্টগুলো বন্ধ থাকায় মুদি দোকান থেকে খাবার কিনে সকালের নাস্তা সেরেছেন অনেকে। কিন্তু দুপুরেও রেস্টুরেন্ট খোলা না থাকায় বিপাকে পড়েছেন অনেকে। দুপুর ১ টা দিকে বেশ কয়েকটি রেস্টুরেন্টের সামনে গিয়ে দেখা যায়- অনেকেই রেস্টুরেন্ট বন্ধ পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন। কেউ কেউ পাশের সুপারশপ থেকে খাবার কিনে বাইরে বসে খাচ্ছেন। এদের সাথে কথা বলে দেখা গেছে তাদের বেশীরভাগই পর্যটক। ঢাকা থেকে কয়েকজনের সাথে কথা হলে তারা জানান- হোটেলে ব্যাগ রেখে নাস্তা করতে এসে দেখেন সবগুলো রেস্টুরেন্ট বন্ধ। মে দিবসে সকল রেস্টুরেন্ট বন্ধ থাকে এটা জানা ছিলো না, তাই মুদি দোকান থেকে খাবার কিনে সকালের নাস্তা সেরেছেন। আবার কয়েকটি অভ্যন্তরীণ রেস্টুরেন্ট এবং চায়নিজ, মিনি চায়নিজ রেস্টুরেন্টগুলো। কিন্তু, এগুলোতে খাবারের দাম তুলনামুলক বেশী হওয়ায় পর্যটকদের জন্য ব্যয়বহুল হচ্ছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন হোটেল মালিক বলেন,মে দিবস আসলে আমরা মারাত্বক রক্ষতিগ্রস্ত যেমন হই তেমনি পর্যটক, সাধারন মানুষেরাও খাবারের জন্য ছুটাছুটি করতে হয়। যদি ২ ভাগে শ্রমিকদের ছুটি দেয়া হয় তাহলে এ সমস্যার সমাধান হবে।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।